প্রত্যয়

সংগাঃ কোন বর্ণ বা বর্ণসমষ্টি শব্দ বা ধাতুর পরে বসে যদি ওই শব্দ বা ধাতুর ভিন্নার্থ প্রকাশ করে তবে তাকে প্রত্যয় বলে। নতুন গঠিত শব্দের প্রথম অংশকে মূল বা প্রকৃতি এবং দ্বিতীয় অংশকে প্রত্যয় বলে।
যেমন- ধার্মিক = ধর্ম + ইক। এখানে প্রথম অংশ ধর্ম হল প্রকৃতি এবং অতিরিক্ত অংশ ইক হল প্রত্যয়।
প্রত্যয় ২ প্রকারঃ

  1.  কৃৎ প্রত্যয়
  2.  তদ্ধিত প্রত্যয়

কৃৎ প্রত্যয়ঃ ক্রিয়ামূল বা ধাতুর সঙ্গে যে প্রত্যয় যুক্ত করা হয় তাকে বলে কৃৎ প্রত্যয়। যেমন-

  1.  পড় + উয়া = পড়–য়া
  2.  কৃ + তব্য = কর্তব্য

 কৃৎ প্রত্যয় সাধিত শব্দটিকে বলা হয় কৃদন্ত পদ।
 প্রকৃতি শব্দটি বোঝানোর জন্য ক্রিয়া প্রকৃতির আগে চিহ্ন ব্যবহৃত হয়।
 বিভক্তিহীন নাম শব্দকে প্রাতীপাদিক বলে।
তদ্ধিত প্রত্যয়ঃ নামপদের সাথে যে প্রত্যয় যুক্ত হয় তাকে তদ্ধিত প্রত্যয় বলে। যেমন-
চোর + আ = চোরা
বড় + আই = বড়াই


কয়েকটি কৃৎ প্রত্যয়যোগে গঠিত শব্দঃ

বাংলা কৃৎ প্রত্যয়
প্রত্যয় প্রকৃতি + প্রত্যয় গঠিত নতুন শব্দ
ক্ (অক) ঝল্ + ক্ (অক)
মুড়্ + ক্ (অক)
ঝলক
মোড়ক
অন কাঁদ্ + অন
ভাঙ্ + অন
কাঁদন
ভাঙন
অন্ত ঘুম্ + অন্ত
উড়্ + অন্ত
ঘুমন্ত
উড়ন্ত
আইত ডাক্ + আইত
লড়্ + আই
ডাকাইত > ডাকাত
লড়াই
আও চড়্ + আও
ফল্ + আও
চড়াও
ফলাও
আনি উড়্ + আনি
চাল্ + আনি
উড়ানি
চালানি
ইয়ে গাহ্ + ইয়ে
খা+ ইয়ে
গাইয়ে
খাইয়ে
উক মিশ্ + উক
লাজ + উক
মিশুক
লাজুক
আন (উনি) কাঁপ্ + উনি
চাল্ + উনি
কাঁপুনি
চালুনি
উয়া পড়্ + উয়া
খা+ উয়া
পড়ুয়া
খাউয়া
সংস্কৃত কৃৎ প্রত্যয়
প্রত্যয় প্রকৃতি + প্রত্যয় গঠিত নতুন শব্দ
অক গৈ + অক
পঠ্ + অক
গায়ক
পাঠক
অন গম্ + অন
জ্বল্ + অন
গমন
জ্বলন
অনীয় কৃ + অনীয়
দৃশ + অনীয়
করনীয়
দর্শনীয়
কুন্ঠ্ + ত
লিখ্ + ত
কুন্ঠিত
লিখিত
ইষ্ঞু চল্ + ইষ্ঞু
সহ্ + ইষ্ঞু
চলিষ্ঞু
সহিষ্ঞু
উক্ ভূ + উক্
কম্ + উক
ভাবুক
কামুক
বচ্ + ত
নম্ +ত
উক্ত
নত
তব্য কৃ + তব্য
দৃশ্ + তব্য
কর্তব্য
দ্রষ্টব্য
তৃ কৃ + তৃ
নী + তৃ
কর্তা
নেতা
বর ঈশ্ব + বর
নশ্ + বর
ঈশ্বর
নশ্বর
বাংলা তদ্ধিত প্রত্যয়
প্রত্যয় প্রকৃতি + প্রত্যয় গঠিত নতুন শব্দ
থাল + আ
চোর + আ
থালা
চোরা
আই বড় + আই
বামন + আই
বড়াই
বামনাই
আমি/আমো পাগল + আমি
ন্যাকা + আমি
পাগলামি / মো
ন্যাকামি / মো
আরি কাঁসা + আরি
শাঁখা + আরি
কাঁসারি
শাঁখারি
আল দাঁত + আল
ধার + আল
দাঁতাল
ধারাল
আলা/ওয়ালা গো + আলা
ফেরি + ওয়ালা
গোয়ালা
ফেরিওয়ালা
আলি সোনা + আলি
রুপা + আলি
সোনালি
রুপালি
দাম + ই
ঢোল + ই
দামি
ঢুলি
ঢাল + উ
কল + উ
ঢালু
কলু
উক ইচ্ছা + উক
মিথ্যা + উক
ইচ্ছুক
মিথ্যুক
সংস্কৃত তদ্ধিত প্রত্যয়
প্রত্যয় প্রকৃতি + প্রত্যয় গঠিত নতুন শব্দ
ইক অণু + ইক
ইচ্ছা + ইক
আণবিক
ঐচ্ছিক
ইম পশ্চাৎ + ইম
অন্ত + ইম
পশ্চিম
অন্তিম
ইমন্ নীল + ইমন্
দীর্ঘ + ইমন্
নীলিমা
দ্রাঘিমা
ঈন্ কুল + ঈন্
নব + ঈন্
কুলীন
নবীন
ঈয়সী লঘু + ঈয়সী
গুরু + ঈয়সী
লঘীয়সী
গরীয়সী
ঈয়ান্ গুরু + ইয়ান্
লঘু + ইয়ান্
গরীয়ান
লঘীয়ান
ত্ব গুরু + ত্ব
লঘু + ত্ব
গুরুত্ব
লঘুত্ব
তর বৃহৎ + তর
ক্ষুদ্র + তর
বৃহত্তর
ক্ষুদ্রতর
মতুপ্ বুদ্ধি + মতুপ্
শ্রী + মতুপ্
বুদ্ধিমান
শ্রীমান
সাৎ অগ্নি + সাৎ
ধূলি + সাৎ
অগ্নিসাৎ
ধূলিসাৎ
বিদেশি তদ্ধিত প্রত্যয়
প্রত্যয় প্রকৃতি + প্রত্যয় গঠিত নতুন শব্দ
আনা বাবু + আনা বাবুয়ানা
খানা ছাপা + খানা ছাপাখানা
চা/চি বাগ + চা বাগিচা
বিদেশি তদ্ধিত প্রত্যয়
প্রত্যয় প্রকৃতি + প্রত্যয় গঠিত নতুন শব্দ
ওয়ান দার (দ্বার) + ওয়ান দারোয়ান
খোর গাঁজা + খোর গাঁজাখোর
দার চৌকি + দার চৌকিদার

প্রকৃতি ও প্রত্যয় নির্ণয় ঃ
কৃৎ প্রত্যয় নির্ণয়ের পদ্ধতিঃ
১। ে / ৈ হলে ি / ী (নী, ধা, ক্রী, গী থাকলে ী)
চেনা = চিন্ + আ (উচ্চারণের সময় জিহŸা উপরে নীচে লেগে গেলে হলন্ত হয়)
কেনা = কিন্ + আ
২। ও / ঔ হলে উ ( ু) যেমন- দুল্ + অনা
৩। অর / আর থাকলে ৃ (ঝ কার) যেমন- কর্তা = কৃ +তা, ভর্তা = ভৃ + তা।
৪। ত, ঠ, ট, ন, ণ থাকলে ক্ত (প্রত্যয় অংশে)
উ এর পরে ক থাকলে চ হয় (প্রকৃতি অংশে)
উ শব্দের শুরুতে হলে হবে ব, ু থাকলে পরিবর্তন হবেনা।
উক্ত = বচ্ + ক্ত, মুক্ত = মুচ্ + ক্ত।
তদ্ধিত প্রত্যয় ঃ
শৈশব = শিশু + অব, লাবন্য = লবন + য, পার্বত্য = পর্বত + য।
ব হবে অ, যেমন- মানব = মনু + অ
ঐ থাকলে ইয়া, যেমন- মেয়ে = মা + ইয়া, জেলে = জাল + ইয়া ।
্য থাকলে য, যেমন- পার্বত্য = পর্বত + য, সাহিত্য = সহিত + য, গ্রাম্য = গ্রাম + য।
ও হবে উয়া, যেমন- টেকো = টাক + উয়া, মেছো = মাছ + উয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!